Menu

অন্নদামঙ্গল ১৭৫১ খ্রি.

অন্নদামঙ্গল ১৭৫১ খ্রি.

কবি = রায়গুণাকর ভারতচন্দ্র।

প্রকৃতি = মঙ্গলকাব্য বিষয়ক গ্রন্থ।

বিভাগ = অন্নদামঙ্গলের কাহিনি তিন খণ্ডে বিভক্ত-(১) অন্নদামঙ্গল বা পৌরাণিক লৌকিক অংশ, (খ) অন্নপূর্ণা বা মানসিংহ, (গ) কালিকামঙ্গল বা বিদ্যাসুন্দর। প্রথম খন্ডে হরপার্বতী, ব্যাসদেব, হরিহোড় বা ভবানন্দের সঙ্গে অন্নদার দেবমাহাত্ম্যমূলক কাহিনি। দ্বিতীয় খণ্ডে ভবানন্দ-মানসিংহ এবং প্রতাপাদিত্যের ঐতিহাসিক কাহিনি বর্ণিত হয়েছে এবং তৃতীয় খণ্ডে বিদ্যার সঙ্গে সুন্দরের প্রেমোপাখ্যান ও কালিকার মাহাত্ম্য বর্ণিত হয়েছে।

আরো পড়ুন--  কবি চূড়ামণি দাসের কবি পরিচয় | গৌরাঙ্গবিজয় কাব্যের পরিচয়

বিশেষ বৈশিষ্ট্য

++ মঙ্গলকাব্যের ধারায় ভারতচন্দ্রের এক নূতন মঙ্গল।

++ ড. সুকুমার সেনের মতে, “মুকুন্দরাম দেবতাকে মানুষ করিয়েছেন। ভারতচন্দ্র দেবতাকে নট করিয়েছেন।”

++ অন্নদামঙ্গলের মধ্য দিয়ে আধুনিক বাংলা সাহিত্যের শুভ সূচনা।

++ অষ্টাদশ শতাব্দীর অবক্ষয়ের চিত্র এই গ্রন্থে বর্ণিত হয়েছে।

++ বাক্-রীতির অভূতপূর্ব অন্ত্যানুপ্রাস অলংকারের নিপুণ প্রয়োগ। নানা প্রকার সংস্কৃতছন্দের বাংলা রূপান্তর, হাস্যকৌতুকের যথাবিহিত ব্যবহার প্রভৃতি উচ্চ কলানৈপুণ্যের পরিচয় অন্নদামঙ্গলে রয়েছে।

আরো পড়ুন--  অদ্ভুত রামায়ণ

++ ভারতচন্দ্র ছিলেন রাজসভার কবি। তাই তাঁর কাব্যে জৌলুষ ও আড়ম্বর স্থান পেয়েছে। সমকালীন যুগধর্ম ও পরিবেশকে ভারতচন্দ্র ছাড়িয়ে উঠতে পারেননি।

++ ভারতচন্দ্রকে অনেকে বলে থাকেন রঙ্গব্যঙ্গের কবি। সে রঙ্গব্যঙ্গ হাস্যপরিহাসের পরিচয় অন্নদামঙ্গলের ছত্রে ছত্রে রয়েছে।

++ চরিত্রচিত্রণের ক্ষেত্রে বিশেষ করে হীরামালিনীর চরিত্র রূপায়ণে কবি বিশেষ পারদর্শিতা দেখিয়েছেন। সব মিলিয়ে ভারতচন্দ্রের অন্নদামঙ্গল মঙ্গলকাব্যধারায় এক স্বতন্ত্র মঙ্গলকাব্য।

আরো পড়ুন--  আর্যাতর্জা কী

++ ভারতচন্দ্রের কাব্য ‘রাজকন্ঠের মণিমালার মত’। – অন্নদামঙ্গল সম্পর্কে রবীন্দ্রনাথের এই অভিমত যথার্থ।

++ এই কাব্য যুগসন্ধির কাব্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: সংরক্ষিত !!
close button